নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম, নগদ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম, নগদ একাউন্ট ডিলিট করার নিয়ম

নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম | নগদ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম


নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম সম্পর্কে জানার ইচ্ছে থাকলে এই পোস্ট আপনাদের জন্য। আজকের এই পোস্টে আমি নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম সম্পর্কে লেখার চেষ্টা করেছি।
বাংলাদেশে বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় ও পরিচিত মোবাইল ব্যাকিং সেবা হচ্ছে নগদ। আমার জনামতে দেশের মোবাইল ব্যাকিং লেনদেনের বেশির ভাগ লেনদেন বিকাশের মাধ্যমে হয়ে থাকে। তবে নগদ অতি দ্রুত জনপ্রিয়তা পেয়েছে আমরা অন্য একটি পোস্টে নগদ একাউন্ট নাম্বার পরিবর্তন করার নিয়ম সম্পর্কে লিখেছিলাম। তবে আজকের পোস্টে শুধু নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম সম্পর্কে লিখেছি।
অনেক গ্রাহক বিভিন্ন কারণে তাঁদের নগদ একাউন্ট বন্ধ করতে চায়। যারা বিকাশের একাউন্ট বাতিল করতে চাচ্ছেন কিন্তু বাতিল করতে পারছেন না তাদের জন্য আজকের এই পোস্টটি লিখেছি।

নগদ একাউন্ট বন্ধ করার প্রয়োজন কেন হয়?

নগদ একাউন্ট বন্ধ করার এরকম কারণ হতে পারে যে আপনি আপনার সিমে অন্যের ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে নগদ একাউন্ট খুলেছিলেন। এখন আপনার NID কার্ড হাতে পেয়েছেন। তাই আপনি আপনার সিমে থাকা একাউন্টটি বন্ধ করে নতুন একটি একাউন্ট খুলতে চাচ্ছেন।
এছাড়া অনেকেই ভিন্ন ভিন্ন কারণে তাদের আগের নগদ একাউন্ট বাতিল করে নতুন নগদ একাউন্ট খুলতে চায়। তাই আপনারা যদি আপনাদের নগদ একাউন্ট ডিলিট করার কথা ভেবে থাকেন। তাহলে চিন্তা কোনো কারণ নেই, আজকের এই পোস্টে আমি কিভাবে নগদ একাউন্ট বাতিল করবেন সেই সম্পর্কে বিস্তারিত লেখার চেষ্টা করেছি।

নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম বা নগদ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম জেনে নিন –

আপনি কাস্টমার কেয়ার এ কল করে অথবা মোবাইল অ্যাপস এর সাহায্যে নগদ একাউন্ট ডিলিট করতে পারবেন না। নগদ একাউন্ট বন্ধ করার জন্য আপনাকে সরাসরি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে নগদ অফিসে যেতে হবে।
নগদ অফসে যাওয়ার পরে আপনি কি কারণে বিকাশ একাউন্ট বাতিল করতে চান সেই সম্পর্কে কাস্টমার ম্যানেজারকে বলতে হবে এবং আপনার ভোটার কার্ড কাগজপত্র জমা দিতে হবে।
আর আপনার সিমে যদি অন্য কারও ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে নগদ একাউন্ট খোলা থাকে তাহলে সেই ব্যক্তিকে নগদ অফিস সাথে নিয়ে যেতে হবে এবং অফিসে তার কাগজপত্র প্রয়োজন হবে।

নগদ একাউন্ট বন্ধ করার জন্য যে ডকুমেন্টসগুলো প্রয়োজন হবে জেনে নিন —

আপনার সিমে যে ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে নগদ একাউন্ট খোলা হয়েছিল সেটা সঙ্গে নিয়ে নগদ অফিসে যেতে হবে সেই কার্ড হতে পারে আপনার বা অন্য কারও। আর আপনার যদি আপনারা পরিবারের কোনো সদস্য যেমন বাবা,মা,ভাই,বোন এর ভোটার আইডি কার্ড ব্যবহার করে বিকাশ একাউন্ট খুলে থাকেন। তাহলে সেই সদস্য কেউ নগদ অফিসে সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে। 
আপনার নগদ একাউন্ট বন্ধ করার আগে আপনার নগদ একাউন্টের ব্যালেন্স অবশ্যই শূন্য করে তারপর বন্ধ করবেন কারণ টাকাসহ একবার একাউন্ট বন্ধ করে ফেললে ঐ টাকা আর উঠানো সম্ভব হবে না।
তারপর আপনার সেই সিমে পুনরায় নগদ একাউন্ট খুলতে পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি ও ভোটার আইডি কার্ডের প্রয়োজন পড়বে।
এছাড়া আপনাদের নগদ একাউন্ট সংক্রান্ত কোনো সমস্যা সমাধানের জন্য নগদ হেল্পলাইন নম্বর 16167 -তে কল করুন সকল বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন।

এগুলো পড়তে পারেন —

মোবাইলে নগদ একাউন্ট খোলার নিয়ম | নগদ একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত
নগদ একাউন্ট নাম্বার পরিবর্তন করার নিয়ম ২০২১
একটি আইডি কার্ড দিয়ে কয়টি নগদ একাউন্ট খোলা যায়
নগদ ক্যাশ আউট চার্জ ২০২১ – Nagad cash out charge 2021
নগদ একাউন্টের অফার ২০২১ | Nagad Account Offer 2021
বিকাশ ক্যাশ আউট চার্জ ২০২১|BKash Cash Out Charge 2021| বিকাশ লিমিট
বিকাশ একাউন্টের মালিকানা পরিবর্তন করার নিয়ম জেনে নিন
বিকাশ অ্যাপ প্রতি রেফারে ১০০ টাকা বোনাস
আজকের এই পোস্ট নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম সম্পর্কে আপনাদের কোনো মতামত থাকলে কমেন্টে লিখতে পারেন আমি উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবো। এছাড়াও আপনাদের যেকোনো জরুরি প্রয়োজনে সরাসরি আমার ফেসবুক পেজ এ মেসেজে করতে পারেন।
পোস্টটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না

ট্যাগ সমূহ : নগদ একাউন্ট বাতিল করার নিয়ম, নগদ একাউন্ট বন্ধ করার নিয়ম, নগদ একাউন্ট ডিলিট করার নিয়ম


Leave a Comment

Your email address will not be published.

BDBLOG.TOP